NAVIGATION MENU

যশোরে 'বিষাক্ত মদপানে' ৬ জনের মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা!


যশোরের ঝিকরগাছায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ জনের 'বিষাক্ত মদপানে' অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয়রা ভেজাল মদপানে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবী করলেও ভেজাল মদপানের প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৬ জুন) রাতে ঝিকরগাছা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আব্দুর রাজ্জাক মৃতদের বাড়িতে গেলে মৃতরা সবাই হৃদরোগে মারা গেছেন বলে তাদের পরিবার-সদস্যরা দাবি করেন। তারা হাসপাতালের ছাড়পত্রও দেখান।

অস্বাভাবিকভাবে মারা যাওয়া ব্যক্তিরা হলেন- উপজেলার রাজাপুর গ্রামের আবুল গাজীর ছেলে হাবিল গাজী (৬০), বর্নি গ্রামের সুরত আলীর ছেলে ফারুক হোসেন (৪০), হাজিরালী গ্রামের মৃত গহর আলীর ছেলে আসমত আলী (৫০), পুরন্দরপুর গ্রামের মৃত ফকির ধোপার ছেলে হামিদুর রহমান (৫৫), রাজাপুর গ্রামের আলফাজের ছেলে নুর ইসলাম খোকা (৫৫) এবং ঋষিপাড়ার মৃত রসিক লালের ছেলে নারায়ণ (৫৫)।

গুরুতর অসুস্থ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ব্যক্তি জানান, সোমবার সকালে পুরন্দরপুর গ্রামের জলিল সর্দারের ছেলে মিন্টুর কাছ থেকে মদ ক্রয় করে খোকা, নারায়ণ ও হামিদুরের সঙ্গে তিনিও পান করেছিলেন। কিন্তু তিনি পরিমাণে কম পান করেন। বাড়িতে ফেরার পর নিজে এবং ওই তিনজন অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের যশোরের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় খোকা, হামিদুর ও নারায়ণ মারা যান।

তিনি আরও বলেন, সোমবার রাতে খোকা, হামিদুরকে দাফন ও নারায়ণকে সৎকার করা হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর হাবিল গাজী, ফারুক হোসেন ও আসমত আলীর মৃত্যু হয়।

এই বিষয়ে ঝিকরগাছা থানার ওসি মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘মৃতদের আত্মীয়-স্বজনরা বলছে তারা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে এবং মেডিকেল ছাড়পত্রও দেখিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, মৃতদের মধ্যে হাবিল মদের কারবারি ছিলেন। কয়েক মাস আগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

ওয়াই এ/ এডিবি