ন্যাভিগেশন মেনু

মায়ানমার সেনা অভ্যুত্থান: সেনাবাহিনীর অ্যাকাউন্ট বন্ধ করলো ফেসবুক


মায়ানমার সেনাবাহিনীর সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ফেসবুকের পক্ষ থেকে মায়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

বেসামরিক সরকারকে সরিয়ে সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখলের পরে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে।

এক ব্লগ পোস্টে ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘ফেব্রুয়ারির ১ তারিখ থেকে বিক্ষোভ প্রতিবাদের পর থেকেই সহিংসতা শুরু হয়েছে। সে কারণেই এই নিষেধাজ্ঞার প্রয়োজন ছিল। সেখানে আরও বলা হয়েছে, ‘আমরা বিশ্বাস করি তাতমাদাউকে (মায়ানমার সেনাবাহিনী) ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রামে থাকার অনুমতি দেয়া হলে তা হবে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ।’

ফেসবুকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মায়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং ভবিষ্যতে সামরিক বাহিনী কর্তৃক সহিংসতার স্পষ্ট ঝুঁকি তৈরি হওয়ার কারণেই এমন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

তবে এ বিষয়ে মায়ানমার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এখনও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) মায়ানমারের সামরিক বাহিনী সে দেশের ক্ষমতা নিয়েছে। সেইসঙ্গে দেশটির প্রেসিডেন্ট, অং সান সু চি এবং অন্য রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেপ্তার করার পর তারা দেশটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী। সাথে সাথে দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ৮ নভেম্বরের নির্বাচনে এনএলডি পার্টি ৮৩ শতাংশ আসন পায়, যা সু চির বেসামরিক সরকারের প্রতি সর্বসাধারণের সমর্থন হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

সম্প্রতি সামরিক বাহিনী নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তোলার পর থেকে সামরিক অভ্যুত্থানের শঙ্কা দেখা দিয়েছিলো। তবে এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

সেনা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল ও জরুরি অবস্থা জারির সমালোচনা ও নিন্দা করছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসসহ বিশ্বনেতারা।

ওয়াই এ/ওআ