ন্যাভিগেশন মেনু

বুবলীকে গাড়িচাপায় হত্যাচেষ্টা,


ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শবনম ইয়াসমিন বুবলীকে বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাতে গাড়িচাপা দিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। অন্তত তিনবারের মতো তাকে গাড়ি চাপা দিয়ে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে। কেবল গাড়ি দিয়েই নয়, বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন এই নায়িকা।  নিজের আত্মরক্ষায় রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন এ নায়িকা। যার নম্বর ১৯১৭। গত শুক্রবার রাতেই থানায় হাজির হয়ে জিডিটি করেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে ছোট ভাই ও বাবা ছিলেন।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) প্রকাশ করেন নিজের ফেসবুকে দেয়ালে। বুবলী বলেন, ‘সব সড়ক দুর্ঘটনাই দুর্ঘটনা নয়। অনেক সময় পরিকল্পিতও হয়, সেটি গত দুদিন টের পেয়েছি সরাসরি। উপলব্ধি করেছি আমরা যা দেখি বা যা শুনি তার পেছনেও অন্য এক অজানা সত্য থাকে। মৃত্যুকে খুব কাছ থেকে দেখলাম আর ভাবছিলাম আজকের দিনটিতে তো আমাকে নিয়ে অন্য রকম সংবাদও হতে পারতো।’

বুবলী মনে করেন, পর পর দুদিন তিনি মৃত্যুর খুব কাছ থেকে বেঁচে এসেছেন। কারণ, তার সঙ্গে ছিল আল্লাহর রহমত, বাবা-মা-বোনের দোয়া আর ভক্তদের ভালোবাসা।

সম্প্রতি দীর্ঘ অন্তর্ধান শেষে সবাইকে চমকে দিয়ে ফের কাজে ফেরেন শবনম বুবলী। ঘোষণা দেন দুটি ছবির। একটি নিরবের সঙ্গে ‘চোখ’, অন্যটি শাকিব খানের সঙ্গে ‘লিডার’। প্রথমটির শুটিং চলছে। মূলত এই শুটিংয়ে আসা-যাওয়ার পথেই সড়কে হত্যার হুমকি অনুভব করেন বুবলী। এমনকি শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) শুটিংয়ে যাওয়াও বন্ধ করেছেন তিনি।

বুবলী বলেন, ‘‘গত ৪-৫ দিন আমি ‘চোখ’ সিনেমার শুটিং করছিলাম। যথারীতি শুটিং শেষে রাতে বাসায় ফেরার পথে বিপরীত রাস্তা থেকে কোনও হর্ন না বাজিয়ে, কোনও সিগনাল না দিয়ে আমার গাড়ির সামনে প্রচণ্ড বেগে তেড়ে এসেছে একটি প্রাইভেটকার। যার গ্লাস ছিল ব্ল্যাক পেপার দিয়ে মোড়ানো। এবং কোনও নাম্বার প্লেট ছিল না গাড়িটার! আমার ড্রাইভার হার্ডব্রেক না করলে হয়তো অন্যকিছু হতে পারতো।’

বুবলী জানান, তিনি নিজেও ড্রাইভিং জানেন। ফলে সড়কে গাড়ির আচরণ সম্পর্কে তার ভালো ধারণা রয়েছে। তার ভাষায়, ‘কোনটি দুর্ঘটনা আর কোনটি ইচ্ছাকৃত তা বোঝার ক্ষমতা নিশ্চয়ই একজন সুস্থ স্বাভাবিক মানুষের মতো আমারও আছে। আমি মনে করছি, এই ঘটনাগুলো আমার সঙ্গে ইচ্ছাকৃত হচ্ছে।’

সরাসরি কারও দিকে আঙুল না তুললেও বুবলী সন্দেহ প্রকাশ করেন। বলেন, ‘অনেক দিন ধরেই আমি নানাভাবে নানান কিছু বুঝতে পারছি, শুনতে পারছি। মনে রাখবেন, কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নন, আর আল্লাহ তো একজন আছেন, যিনি সবই দেখেন। শিগগিরই আমি আইনানুগ ব্যবস্থা নেবো এ ব্যাপারে।’

ওআ/