NAVIGATION MENU

ফ্যাশন ডিজাইনার শর্বরী দত্ত মারা গেছেন


ভারতে পুরুষদের ফ্যাশন ডিজাইনের অন্যতম পথিকৃৎ শর্বরী দত্ত মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে আচমকা শর্বরী দত্তের মৃত্যুর খবরে হতবাক হয়ে যান সকলেই। 

বাড়ির শৌচাগারে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় ৬৩ বছরের এই ডিজাইনারকে। এরপর বাড়ির লোক খবর দেন স্থানীয় থানায়। সেখান থেকেই পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় নীলরতন সরকার মেডিকেল কলেজে।

ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, মস্তিষ্কে অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণের কারণেই মৃত্যু হয়েছে শর্বরী দত্তের। শুক্রবার তার দেহ ময়নাতদন্তের পর পুলিশকে তেমনই জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা।

ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ি, ৬৩ বছরের শর্বরীর মৃত্যু হয়েছে বুধবার মধ্যরাতে।

চিকিৎসদের বক্তব্য, ময়নাতদন্তের অন্তত ৩৬ ঘণ্টা আগে মৃত্যু হয় শর্বরীর। তার মরদেহ বাড়ির একতলার শৌচাগার থেকে উদ্ধার করা হয় বৃহস্পতিবার রাতে। অর্থাৎ, উদ্ধার হওয়ার ২৪ ঘন্টা আগেই তার মৃত্যু হয়েছিল।

কলকাতায় ব্রড স্ট্রিটের বাড়ির একতলায় তিনি একা থাকতেন, দোতলায় থাকেন তার পুত্র ও পুত্রবধু। তারা বলছেন, গতকাল সারাদিন তাকে ফোন করে পাওয়া যায়নি। রাত বারোটার পর ওরা খোঁজ নিতে দোতলা থেকে নীচে নেমে দেখতে পান শর্বরী দত্ত বাথরুমে পড়ে আছেন। 

কবি অজিত দত্তের মেয়ে শর্বরী দত্তের স্বামী আলো দত্তও ছিলেন ডিজাইনার। শর্বরীর সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য ছিল ছেলেদের পোশাককে ভারতীয় তথা বাংলার ফ্যাশনের বস্তু করে তোলা। তার জন্য ডিজাইনার বললে তিনি আপত্তি করতেন। বলতেন, আমি শুধু পুরনো ডিজাইন নতুন করে তুলে ধরেছি, সেগুলোকে মানুষের কাছে এনেছি। মেয়েরা ফ্যাশন করলে ছেলেরা বাদ যাবে কেন?

বলিউড-টলিউড, ক্রিকেটের বহু তারকাও শর্বরীর ডিজাইন করা পোশাক পরে অনুষ্ঠানে যেতেন। সচিন তেন্ডুলকর, সৌরভ গাঙ্গুলী থেকে শুরু করে বহু তারকাই তার ফ্যাশন ডিজাইনের ভক্ত ছিলেন।

এডিবি/